২৫ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, রবিবার ০৯ আগস্ট ২০২০ ইংরেজি, ৯:১৩ অপরাহ্ণ
Find us on facebook Find us on twitter Find us on you tube RSS feed
প্রচ্ছদ আওয়ামী লীগ বিএনপি ধর্মভিত্তিক দল জাতীয় পার্টি বামদল অন্যান্য দল প্রশাসন জাতীয় সংসদ নির্বাচন কমিশন শ্রমিক রাজনীতি ছাত্র রাজনীতি
সারাদেশ নিরাপত্তা ও অপরাধ বিশ্ব রাজনীতি উন্নয়ন ও সংগঠন অন্যান সংবাদ প্রবাস সাক্ষাতকার বই মতামত ইতিহাস অর্থনীতি
28 May 2015   10:01:55 PM   Thursday BdST A- A A+ Print this E-mail this

মাগুরা উপ-নির্বাচন

ভোটকেন্দ্রে সাংবাদিক প্রবেশে ইসির নিষেধজ্ঞা!

নিজস্ব প্রতিবেদক
পলিটিক্সবিডি.কম
মাগুরা উপ-নির্বাচন ভোটকেন্দ্রে সাংবাদিক প্রবেশে ইসির নিষেধজ্ঞা!

বিতর্কিত তিন সিটি নির্বাচনে পুলিশ স্ব-উদ্যোগে সাংবাদিকদের কেন্দ্রে প্রবেশ করতে না দিলেও এবার নির্বাচন কমিশন (ইসি) নিজেই লিখিত নিষেধজ্ঞা জারি করেছে। গত বুধবার এক নির্দেশনার মাধ্যমে মাগুরা-১ আসনের উপ-নির্বচনে ভোটকেন্দ্রে সাংবাদিক প্রবেশ ও কথা বলার উপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা জারি করলো কমিশন। ইসির জনসংযোগ শাখার সহকারী পরিচালক আরাফাত আরা স্বাক্ষরিত চিঠিতে ভোটকেন্দ্র পরিদর্শনে সাংবাদিকদের ৯টি নির্দেশনা মেনে চলতে বলা হয়েছে। এছাড়াও এ নির্বাচনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপনে রিটার্নিং অফিসারের অনুমতি ছাড়া প্রিজাইডিং অফিসারকে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে নিষেধ করা হয়েছে। এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকদের বৃহস্পতিবার চরম ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে। এ ঘটনায় সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এম. সাখাওয়াত হোসেন ও মুহাম্মদ ছহুল হোসেনও বিস্ময় প্রকাশ করেছেন।
রিটার্নিং অফিসারের কাছে ৯টি শর্ত দিয়ে পাঠানো নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ভোটকেন্দ্রে প্রবেশের পূর্বে প্রিজাইডিং অফিসারের অনুমতি ছাড়া কোন ভোটকক্ষে প্রবেশ করা যাবে না; এক সঙ্গে ৫জনের বেশি সাংবাদিক প্রবেশ করতে পারবে না; ১০মিনিটের বেশি কেন্দ্রে অবস্থান করতে পারবে না; ভোটকক্ষে নির্বাচনি কর্মকর্তাসহ করোর সাথে আলাপ করতে পারবে না; সাংবাদিকগণ নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কাজে হস্তক্ষেপ করতে পারবে না; কোন প্রকার নির্বাচনি উপকরন স্পর্শ বা অপসারন করা থেকে বিরত থাকবেন;  প্রার্থী বা রাজনৈতিক দলের পক্ষে বা বিপক্ষে কোন ধরনের কর্মকা- হতে বিরত থাকবেন; সংবিধান, নির্বাচনী আইন ও বিধিবিধান মেনে চলবেন; এবং সাংবাদিক পরিচয়পত্রের উল্টো পিঠের সবকল নির্দেশনা মেনে চলবেন। এ নির্দেশনা জারির পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা পত্রে বলা হয়েছে, রিটার্নিং অফিসারের অনমতি ছাড়া ভোটকেন্দ্রে কোন প্রিজাইডিং অফিসার সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে পারবেন না। তার অর্থ এ ধারালো যে নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রে প্রবেশে সাংবাদিকদের আর বৈধ অধিকার থাকলো না।  
নির্বাচন সংশ্লিষ্টরা জানায়, সিটি নির্বাচনে সাংবাদিকদের ভোটকেন্দ্রে প্রবেশে বাধা ও নাজেহালের ঘটনার প্রকৃত চিত্র উদঘাটনের আগেই স্বয়ং নির্বাচন কমিশনই ভোটকেন্দ্রে সাংবাদিকদের প্রবেশে এ কড়াকড়ি ব্যবস্থা গ্রহণ করলো। এর মাধ্যমে সাংবাদিকদের সংবাদ সংগ্রহের কাজটিকে আরো জটিল করলো ইসি। আগামী ৩০ মে মাগুরা-১ উপ নির্বাচনেই নতুন এ নির্দেশনা চালু করা হচ্ছে। সিটি নির্বাচনে নানা ধরনের অনিয়মে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় বিভিন্ন মহলে ব্যাপক সমালোচনার মুখে সাংবাদিকদের ওপরই এমন তৎপরতা দেখাচ্ছে সাংবিধানিক এ সংস্থাটি। এ ধরনের তৎপরতায় সাধারণ মানুষের মধ্যে ইসির প্রতি মানুষের আরো অনাস্থা তৈরি হতে পারে বলে মত দিয়েছেন সাবেক নির্বাচন কমিশনার মুহাম্মদ ছহুল হোসাইন।
সাবেক নির্বাচন কমিশনার মুহাম্মদ ছহুল জানান, সাধারণত সাংবাদিকরা ভোটের কাজে কখনো বিঘœ ঘটানোর চেষ্টা করে না। সরাসরি প্রোগ্রামের প্রতিযোগিতায় এখন অনেক সাংবাদিক হয়ত কেন্দ্রে একসঙ্গে থাকছে, কিন্তু ভোটকক্ষে তো একসঙ্গে এতো লোক যায় না। তিনি বলেন, ভোট কক্ষে শৃঙ্খলা রাখতে সাংবাদিকদের বিষয়ে কড়াকড়ি করলে মনে রাখতে হবে এ নিয়ে যেনো জনগণের মধ্যে অনাস্থা তৈরি হতে পারে। ইসি হঠাৎ নির্দেশনা দিয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে ভুল বুঝাবুঝি হতে পারে।
নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এম. সাখাওয়াত হোসেন বলেছেন, এ ধরণের নীতিমালা করে থাকলে তা অতন্ত দুঃখ জনক। এর ফলে সাংবাদিকদের সংবাদ সংগ্রহের কাজে জটিলতা দেখা দেবে।
গত এক মাস আগে ঢাকা উত্তর, দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অধিকাংশ কেন্দ্রে অনুমোদিত সাংবাদিকদের ভোটকেন্দ্রে প্রবেশে বাধা দেওয়া ও নাজেহালের ঘটনা ঘটে। প্রকৃত বিষয় উদঘাটনে জেলা প্রশাসন, পুলিশ ও ইসি কর্মকর্তার সমন্বয়ে ঢাকা ও চট্টগ্রামে তদন্ত কমিটিও করা হয়েছে। উক্ত কমিটি প্রকৃত ঘটনা ও সুপারিশসহ ইসিতে প্রতিবেদন দেওয়ার কথা রয়েছে।
এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশন সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ইসি ও আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর কার্যক্রমে স্বচ্ছতা দৃশ্যমান রাখতে সাংবাদিকদের একটি বড় ভূমিকা রয়েছে। সাংবাদিকরা ভোটকেন্দ্রে যাবেন এবং কেন্দ্রে তাদের প্রবেশে কোনো বাধা দেওয়া যাবে না। প্রচলিত নীতিমালা অনুযায়ী তথ্য সংগ্রহের স্বার্থে তারা কেন্দ্রে প্রবেশ করবেন।
ভোটকেন্দ্রে প্রবেশে কড়কড়ির বিষয়ে বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশনার মো. শাহ নেওয়াজ বলেছেন, সাংবাদিকদের সুবিধার্থেই একটি গাইড লাইন তৈরী করা হয়েছে। এটা কোন নীতিমালা বা নির্দেশনা নয়। বিগত সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মতো পুলিশ যাতে সাংবাদিকদের সমস্যা না করে সেই জন্য মাগুরা উপ-নির্বচনে আগাম সতর্কতামুলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তিনি জানান, ভোটকেন্দ্রে সাংবাদিকদের ছোট ছোট গ্রুপে ভাগ করে ভোটকেন্দ্র পরিদর্শনের করানোর মতামত দেন তিনি।
সাংবাদিক কার্ডে যা লেখা থাকে: ভোটের দিন পেশাগত দায়িত্ব পালনে নির্বাচন কমিশন ও রিটার্নিং কর্মকর্তার কার‌্যালয় থেকে সাংবাদিক কার্ড সরবরাহ করা হয়। সাংবাদিক পরিচয়পত্রের অপর পৃষ্ঠার নির্দেশাবলীতে লেখা রয়েছে- এ অনুমতিপত্র হস্তান্তরযোগ্য নয়; কার্ডের বাহক ভোটদানের গোপন কক্ষে প্রবেশ করবেন না; ভোটকেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসারের নির্দেশ মেনে চলবেন এবং বাহক পর্যবেক্ষণ নীতিমালা ও কোড অব কন্ডাক্ত মেনে চলবেন।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

নির্বাচন কমিশন-এর সর্বশেষ

প্রচ্ছদ আওয়ামী লীগ বিএনপি ধর্মভিত্তিক দল জাতীয় পার্টি বামদল অন্যান্য দল প্রশাসন জাতীয় সংসদ নির্বাচন কমিশন শ্রমিক রাজনীতি ছাত্র রাজনীতি
সারাদেশ নিরাপত্তা ও অপরাধ বিশ্ব রাজনীতি উন্নয়ন ও সংগঠন অন্যান সংবাদ প্রবাস সাক্ষাতকার বই মতামত ইতিহাস অর্থনীতি

সম্পাদক : আবু জাফর সূর্য

কপিরাইট © 2020 পলিটিক্সবিডি.কম কর্তৃক সর্ব স্বত্ব ® সংরক্ষিত। Developed by eMythMakers.com