২ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ ইংরেজি, ১:০১ পূর্বাহ্ণ
Find us on facebook Find us on twitter Find us on you tube RSS feed
প্রচ্ছদ আওয়ামী লীগ বিএনপি ধর্মভিত্তিক দল জাতীয় পার্টি বামদল অন্যান্য দল প্রশাসন জাতীয় সংসদ নির্বাচন কমিশন শ্রমিক রাজনীতি ছাত্র রাজনীতি
সারাদেশ নিরাপত্তা ও অপরাধ বিশ্ব রাজনীতি উন্নয়ন ও সংগঠন অন্যান সংবাদ প্রবাস সাক্ষাতকার বই মতামত ইতিহাস অর্থনীতি
15 Jun 2017   05:26:54 PM   Thursday BdST A- A A+ Print this E-mail this

ঝুঁকিপূর্ণ বসতি উচ্ছেদে হস্তক্ষেপ সহ্য করা হবে না: কাদের

চট্টগ্রাম ব্যুরো
পলিটিক্সবিডি.কম
 ঝুঁকিপূর্ণ বসতি উচ্ছেদে হস্তক্ষেপ সহ্য করা হবে না: কাদের

পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণ বসতি উচ্ছেদে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ সহ্য করা হবে না বলে সতর্ক করে দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে চট্টগ্রামের লালখান বাজার, মতিঝর্ণা ও বাটালি হিলসহ কয়েকটি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সামনে এ কথা বলেন।
স্থানীয় প্রভাবশালীদের কারণেই পাহাড়ে বসতি উচ্ছেদ সম্ভব হয় না বলে অভিযোগ জেলা প্রশাসন ও পাহাড় রক্ষার দাবিতে আন্দোলনকারী পরিবেশবাদীদের।
ওবায়দুল কাদের বলেন, পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণ বসতি উচ্ছেদে কোনো পলিটিক্যাল প্রভাব সহ্য করা হবে না। লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবনের ব্যাপার। ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাসকারীদের উদ্ধার করার সময় কোনো রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ আসলে তা কঠোরভাবে দমন করা হবে।
তিনি বলেন, মানুষ বেঁচে থাকলে তো জীবিকা। জীবন রক্ষার জন্য জোর করে সরিয়ে নিতে হবে। উচ্ছেদ নয়, ঝুঁকিপূর্ণ জীবন থেকে প্রয়োজনে বলপ্রয়োগ করে উদ্ধার করতে হবে।
এ সময় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, সংসদ সদস্য  আফসারুল আমীন, চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক জিল্লুর রহমান চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান এবং ১৪ নম্বর লালখান বাজার ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এফ কবির আহমদ মানিক মন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।
লালখান বাজার এলাকা থেকে মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের যান ঝড়ে লন্ডভন্ড ফইল্যাতলি বাজার এলাকা পরিদর্শনে।
গত মঙ্গলবার সকালে এক মিনিটের ঝড়ে ফইল্ল্যাতলী, কলেজ রোড, উত্তর সরাইপাড়া লোহার পুল, সগির চৌধুরী পাড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। ধসে পড়া দেয়ালের নিচে চাপা পড়ে একজন নিহত ও তিনজন আহত হন।
চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের হিসেবে, নগরীর কমপক্ষে ৩০টি পাহাড়ে ৬৬৬টি পরিবার বেশি ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছে। এদের মধ্যে মতিঝর্ণা এলাকায় বসবাসকারী লোকজনই বেশি।
২০০৭ সালের ১১ জুন চট্টগ্রামে অতিরিক্ত বৃষ্টিতে স্মরণকালের ভয়াবহ পাহাড় ও ভূমিধসে মারা যায় ১২৭ জন। লালখান বাজারের মতিঝর্ণাতেই ঘরের ওপর পাহাড় ধসে বেশকয়েকজন নিহত হয়েছিল।    
২০১২ সালের ২৬ জুন রাতে আকবর শাহ এলাকার ইয়াসিন কলোনির কবরস্থানের পাহাড় ধসে ঘর চাপা পড়ে নিহত হয় আটজন। একইদিন নগরীর উত্তর পাহাড়তলীর বিশ্বকলোনি, মক্কীঘোনা ও বাঁশখালীতে তিনজনসহ আরো ১৫ জন নিহত হন।
এর আগে ২০১১ সালের ১ জুলাই নগরীর টাইগারপাস এলাকার বাটালি হিলের রিটেইনিং দেয়াল ধসে ১৭ জনের মৃত্যু হয়।
২০০৮ সালের ১৮ আগস্ট নগরীর লালখান বাজার মতিঝর্ণা এলাকায় পাহাড় ধসে মারা গিয়েছিলেন চার পরিবারের ১১ জন।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

প্রশাসন-এর সর্বশেষ

প্রচ্ছদ আওয়ামী লীগ বিএনপি ধর্মভিত্তিক দল জাতীয় পার্টি বামদল অন্যান্য দল প্রশাসন জাতীয় সংসদ নির্বাচন কমিশন শ্রমিক রাজনীতি ছাত্র রাজনীতি
সারাদেশ নিরাপত্তা ও অপরাধ বিশ্ব রাজনীতি উন্নয়ন ও সংগঠন অন্যান সংবাদ প্রবাস সাক্ষাতকার বই মতামত ইতিহাস অর্থনীতি

সম্পাদক : আবু জাফর সূর্য

কপিরাইট © 2019 পলিটিক্সবিডি.কম কর্তৃক সর্ব স্বত্ব ® সংরক্ষিত। Developed by eMythMakers.com